সাধুসঙ্গের ফলে ক্রমান্বয়ে ফল কি লাভ হয়, তা প্রতিপাদন করতে গিয়ে শ্রীল রূপ গোস্বামী তাঁর ‘ভক্তিরসামৃতসিন্ধু’তে বর্ণনা করেছেন, –

“আদৌ শ্রদ্ধা ততঃ সাধুসঙ্গোহথ ভজনক্রিয়া।

ততোহনর্থনিবৃত্তিঃ স্যাৎ ততো নিষ্ঠা রুচিস্ততঃ।।

অথাসক্তিস্ততো ভাবস্ততঃ প্রেমাভ্যুদঞ্চতি।

সাধকানাময়ং প্রেমণঃ প্রাদুর্ভাবে ভবেৎ ক্রমঃ।।” (ভক্তিরসামৃতসিন্ধু, ১/৪/১৫-১৬)

FB_IMG_1479162224165.jpg

অর্থাৎ, “প্রথমে শ্রদ্ধা, তা থেকে সাধুসঙ্গ, তা থেকে ভজনক্রিয়া, তা থেকে অনর্থনিবৃত্তি, পরে নিষ্ঠা, তা থেকে রুচি ও আসক্তি – এই পর্যন্ত সাধন ভক্তি। তা থেকে ক্রমশ ভাব এবং অবশেষে প্রেম উদিত হয়। সাধকদের প্রেমোদয়ের এটিই ক্রম।”

তাই ভগবৎ কথায় শ্রদ্ধা বা রতি জাগ্রতের মূল কারণ হল সাধুসঙ্গ। সাধুসঙ্গে ভগবানের কথা শ্রবণের দ্বারাই ভগবানের প্রতি শ্রদ্ধা জাগ্রতের কারণ হয়ে থাকে।

হরে কৃষ্ণ!

Advertisements